Alexa

ভারতে ট্রেনে অতিরিক্ত লাগেজ, জরিমানা বাড়ছে ৬ গুণ

ভাস্কর সরদার, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

যাত্রীরা অতিরিক্ত লাগেজ নিয়ে ট্রেন প্ল্যাটফর্মে/ছবি: সংগৃহীত

কলকাতা: ভারতে ট্রেনে লাগেজ বহনের নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। কোনো যাত্রী ইচ্ছে করলেই বেশি ওজনের লাগেজ বহন করতে পারেন না। বেশি লাগেজ নিয়ে কোচের মধ্যে যাত্রীদের বচসাও দেশটিতে নতুন কিছু নয়। আবার খাবার নিয়েও চলছিলো অসন্তুষ্টি।

তাই এবার খাবারের পরিমাণ নয়, গুণগত মান ও লাগেজে নতুন নিয়মের মধ্য দিয়ে রেলযাত্রীদের সন্তুষ্ট করতে পরিবর্তন আনতে চলেছে ভারতীয় রেল। 

ভারতীয় রেল কর্তৃপক্ষের কাছে অতিরিক্ত লাগেজ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ আসছিলো। অবশেষে সেই পরিস্থিতির বদলে উদ্যোগ নিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। ঠিক হয়েছে, ‘ব্যাগেজ অ্যালাউয়েন্স’ বিধিতে পরিবর্তন আনা হবে। এখন অতিরিক্ত লাগেজের জন্য যে জরিমানার নিয়ম রয়েছে, তা একলাফে ছয় গুণ বাড়িয়ে দিতে চলেছে রেল। 
 
বর্তমান নিয়ম অনুসারে, স্লিপার ক্লাসে একজন যাত্রী ৪০ কেজি ও চেয়ারকারে ৩৫ কেজি মাল নিয়ে যেতে পারেন। এর চেয়ে বেশি মাল নিয়ে যেতে হলে পার্সেল অফিসে অতিরিক্ত অর্থ জমা দিতে হতো। এই অতিরিক্ত লাগেজ নিয়ে ভ্রমণ করলে জরিমানার ব্যাপার আগেও ছিল। কিন্তু সেই বিধি আরও কঠোর করা হলো। 

রেল বোর্ডের তথ্য ও জনসংযোগ বিভাগ থেকে জানা যায়, যদি দেখা যায় কোনো যাত্রী সীমার অতিরিক্ত লাগেজ নিয়ে ট্রেনে যাতায়াত করছেন, তবে লাগেজ রেটের ছয় গুণ জরিমানা তার কাছ থেকে আদায় করা হবে। তবে প্লেনে ওঠার আগে বিমানবন্দরে লাগেজের ওজন পরীক্ষা করার মতো তেমন কিছু ট্রেনে থাকবে কিনা তা জানা যায়নি।
 ট্রেনে দুপুরের খাবার
এছাড়া ট্রাঙ্ক, স্যুটকেশ বা বাক্সের মাপও ঠিক করে দিয়েছে রেল। বলা হয়েছে, কামরার ভিতরে লম্বায় ১শ সেমি, চওড়ায় ৬০ সেমি ও ২৫ সেমি উচ্চতার স্যুটকেশ, ট্রাঙ্ক বা বাক্স রাখা যাবে। এই মাপের বাইরে অতিরিক্ত হলে তা লাগেজ ভ্যানে পাঠাতে হবে। যেমনটা প্লেনে হয়। নির্দিষ্ট মাপের ও ওজনের জিনিস হ্যান্ড লাগেজ করা যায় আর তার অতিরিক্ত হলে বেল্টে দিতে হয়।
 
শুধু লাগেজে না, পরিবর্তন আসছে রেলর খাবারেও। এবার পরিমাণে নয়, পরিবর্তন হচ্ছে খাবারের গুণগত মানে। রেলযাত্রীদের সন্তুষ্ট করতে এটাই হতে চলেছে রেলের অভিনব পদ্ধতি। আর এই নয়া পদ্ধতিকে পাথেয় করে যাত্রীদের জন্য কমতে চলেছে খাবারের পরিমাণ। বদলে খাবারের গুণগত মান আরও ভালো করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 
 
যাত্রীদের খাবারের মেন্যু ‘যুক্তিসঙ্গত’ করে তুলতে একটি কমিটি তৈরি হয়েছিল। সেই কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতেই এই নতুন সিদ্ধান্ত বলে রেল সূত্রে খবর। বর্তমানে যাত্রীদের জন্য দিনে ৯শ গ্রাম করে খাবার বরাদ্দ আছে। যাত্রীপিছু সেই খাবারের পরিমাণ কমিয়ে ৭শ গ্রাম করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এর ফলে খাবারের গুণগত মান আরও ভালো করে তোলা যাবে। এবং বেশ কিছুটা খরচ কমানো সম্ভব হবে। 
 
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা মারফত জানা যায়, এবার ডালের পরিমাণ ১৫০ গ্রাম থেকে কমিয়ে ১২০ গ্রাম করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সঙ্গে এবার বোনলেস চিকেন দেওয়া হবে। স্যুপ বাতিল হতে পারে। তার বদলে স্ন্যাক্সে যুক্ত হতে পারে ড্রাই ভেজিটেবল। খাবারের পরিমাণ অনেকটা হাল্কা করা হচ্ছে। লাঞ্চ ও ডিনারে এক ট্রেতে চার থেকে পাঁচ রকম মেন্যু দিয়ে ফুল মিল থাকতো। তার পরিবর্তে থাকবে একটি বা দ ‘টি মেন্যু। নয়া কলেবরের এই খাবার প্রথম চালু করা হবে ২৭টি ট্রেনে। তারমধ্যে অন্যতম রাজধানী-শতাব্দী-দুরন্তের মতো ট্রেন। যেখানে ভারতীয় রেল সরাসরি ক্যাটারিং পরিষেবা দেয়।
 
এছাড়া পরিষেবা উন্নত করতে প্যাকেজিংয়ের মানও বাড়ানো হচ্ছে। এর আগে খাবার পরিবেশকদের জন্য নির্দিষ্ট কোনো যোগ্যতা-মান ছিল না। সেক্ষেত্রেও বাড়তি নজর দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি প্লাস্টিকের ট্রের পরিবর্তে এবার থেকে খাবার পরিবেশন করা হবে ডিসপোজেবল বা ওয়ান টাইম প্লেটে। 
 
বাংলাদেশ সময়: ০৮০৫ ঘণ্টা, জুন ০৭, ২০১৮
ভিএস/এএ

মেঘনার অস্বাভাবিক জোয়ারে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত
সরকারি হাসপাতালে স্বাস্থ্যসেবা বঞ্চিত গর্ভবতী নারী!
৭ ঘণ্টা পর শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু
যে প্রক্রিয়ায় বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার
জাতীয় শোক দিবসে টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী