Alexa

কমপ্ল্যায়েন্সে শীর্ষ হতে চায় এনসিসি ব্যাংক

বিজনেস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

এনসিসি ব্যাংকের মিট দ্যা প্রেস/ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: ন্যাশনাল ক্রেডিট অ্যান্ড কমার্স (এনসিসি) ব্যাংক ২০১৯ সালের মধ্যে কমপ্ল্যায়েন্সে শীর্ষ ব্যাংক হতে চায়। ব্যাংকের ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে মতিঝিলে এনসিসি ব্যাংক ভবনে আয়োজিত ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন ব্যাংকের চেয়ারম্যান মো. নূরুন নেওয়াজ সেলিম।

এসময় ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মোসলেহ্ উদ্দীন আহমেদ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ব্যাংকের ভাইস-চেয়ারম্যান সোহেলা হোসেন এবং পরিচালক খায়রুল আলম চাকলাদার উপস্থিত ছিলেন।

অন্যান্যের মধ্যে ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক খন্দকার নাইমুল কবির ও মো. হাবিবুর রহমান এবং হেড অব অপারেশন্স মুহাম্মদ এইচ কাফীসহ ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন নির্বাহীরা উপস্থিত ছিলেন।

চেয়ারম্যান মো. নূরুন নেওয়াজ সেলিম বলেন, এনসিসি ব্যাংক লি. ১৯৯৩ সালের ১৭ মে এর আগের বিনিয়োগ কোম্পানি ন্যাশনাল ক্রেডিট লিমিটেড থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকে রূপান্তরিত হয়ে ১৬টি শাখার মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু করে। বর্তমানে ১১১টি শাখার মাধ্যমে দেশব্যাপী কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তিনি ২০১৯ সালের মধ্যে কমপ্ল্যায়েন্সে শীর্ষ ব্যাংক হওয়ার লক্ষ্যে গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন।

ব্যাংকের বিভিন্ন সামাজিক অঙ্গীকারের কথা বর্ণনা করে তিনি বলেন, এনসিসি ব্যাংক শুধু মুনাফা বৃদ্ধি নয়, জনকল্যাণেও ব্যাপক কাজ করছে। তিনি ব্যাংকের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কল্যাণে গৃহীত বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার কথাও উল্লেখ করেন। আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ২৫ বছর পূর্তিতে এনসিসি ব্যাংক যে শক্ত ভিত্তির উপর দাঁড়িয়েছে তার কল্যাণে আগামী ২৫ বছর পর শীর্ষ পর্যায়ের ব্যাংক হিসেবে আরও সুদৃঢ় অবস্থানে পৌঁছাবে।

ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মোসলেহ্ উদ্দীন আহমেদ বলেন বলেন, গ্রাহকদের সন্তুষ্টি অর্জন করে এনসিসি ব্যাংক এগিয়ে চলেছে। ২০১৭ সালের শেষে এনসিসি ব্যাংকের মোট আমানত, অগ্রিম ও পরিচালন মুনাফাও ঈর্ষণীয় পর্যায়ে পৌঁছে যথাক্রমে ১৫৯৯৮৮.৪৫ মিলিয়ন, ১৪৬৬৩৩.৮৪ মিলিয়ন এবং ৫৩৫৪.০৬ মিলিয়ন দাঁড়িয়েছে। দেশে রেমিটেন্স সংগ্রহের ক্ষেত্রে ব্যাংকের অবস্থান পঞ্চম। রেমিটেন্স পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় ৫৬ ভাগ বৃদ্ধি পেয়ে ২৭০১২.০৯ মিলিয়ন টাকায় দাঁড়িয়েছে। ২০১৭ সালে ব্যাংকের আমদানি ও রফতানির পরিমাণ ছিল যথাক্রমে ৮৩৭২২.৫৫ মিলিয়ন এবং ২৫৮৯৩.৬০ মিলিয়ন টাকা। প্রবৃদ্ধির হার যথাক্রমে ৪৯ এবং ৫৫ ভাগ। আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার ও সেবার মান বৃদ্ধি এবং সর্বোপরি গ্রাহকদের সন্তুষ্টি জন্য গোল্ডেন সেভিং অ্যাকাউন্ট, ফেস্টিভেল লোন ও ট্রাভেল লোন নামে ০৩টি নতুন সেবা চালু হতে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ২১৪০ ঘণ্টা, মে ১৬, ২০১৮
এসএইচ

মুক্তামনি আর নেই
দুই প্রজাতির মিষ্টি বাঙ্গি উদ্ভাবনে অভাবনীয় সাফল্য
দু’দেশের ঐতিহাসিক বন্ধন-মৈত্রীর প্রতীক ‘বাংলাদেশ ভবন’
মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার সিন্ডিকেট মুক্ত করার দাবি
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে শিক্ষার্থীদের সতর্ক করলো ইউজিসি