Alexa

প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৭.৮ শতাংশ, মূল্যস্ফীতি ৫.৬

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

সংসদে বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী/

ঢাকা: বড় আকাঙ্ক্ষা ও নির্বাচনী বছরে মানুষকে আয়-ব্যয়ের স্বস্তি দেওয়ার চ্যালেঞ্জ সামনে নিয়ে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট জাতীয় সংসদে পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। প্রস্তাবিত এ ব্যয় বিদায়ী ২০১৭-১৮ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের চেয়ে ২৫ শতাংশ বেশি।

বৃহস্পতিবার (৭ জুন) দুপুর পৌনে ১টার দিকে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হলে এ বাজে উত্থাপন করেন মন্ত্রী।

৭ দশমিক ৮ শতাংশ জিডিপি (মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদন) প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরে নতুন অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে। একইসঙ্গে  মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশের মধ্যে ধরে রাখার বিশাল চ্যালেঞ্জ নিয়েছে সরকার। যেন নিত্যপণ্য কিনতে গিয়ে চাপে না পড়েন দেশবাসী।

২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৬৫ এবং মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিলো ৫ দশমিক ৮ শতাংশ।
 
বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো ৭ দশমিক ৬৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন করা হয়েছে। মাঝারি ও বৃহৎ শিল্প সূচক জানুয়ারি ২০১৭ এর তুলনায় জানুয়ারি ২০১৮ সময়ে প্রায় ১৪ শতাংশ বেড়েছে। বন্যার কারণে অর্থবছরের প্রথম দিকে কৃষিখাতে উৎপাদন ব্যাহত হলেও ভর্তুকি, কৃষি উপকরণ সরবরাহ ও অন্যান্য সহায়ক কার্যক্রমের প্রভাবে আমন ও বোরোর উৎপাদন সন্তোষজনক হয়েছে। সার্বিকভাবে, চলতি অর্থবছরে ৪০৭ লাখ মেট্রিক টনের বেশি খাদ্যশস্য উৎপাদনের লক্ষ্য নির্ধারণ করা আছে।’
 
‘অন্যদিকে, ব্যক্তিগত ভোগ ও সরকারি ব্যয় বৃদ্ধির কারণে অভ্যন্তরীণ চাহিদা শক্তিশালী হয়েছে যার ইতিবাচক প্রভাব পড়ছে প্রবৃদ্ধির উপর। তদুপরি, বৈশ্বিক পরিমন্ডলে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ও বাণিজ্যে প্রাণসঞ্চারের ফলে আমাদের রফতানি, প্রবাস আয় ও বৈদেশিক বিনিয়োগ বৃদ্ধির সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে, যা আমাদের প্রবৃদ্ধির উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। 

কৃষিপণ্যের উচ্চ ফলন ও স্বাভাবিক সরবরাহ পরিস্থিতির সুবাদে খাদ্য মূল্যস্ফীতি নিম্নমুখী হলেও বিশ্ব পণ্য বাজার পরিস্থিতির প্রভাবে দেশে খাদ্য-বহির্ভূত মূল্যস্ফীতি বাড়ছে। এপ্রিল ২০১৮ সময়ে বারো মাসের গড় হিসাবে মূল্যস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ৮ শতাংশ, যার মধ্যে খাদ্য ৭ দশমিক ৩ ও খাদ্যবহির্ভূত মূল্যস্ফীতি ৩ দশমিক ৫ শতাংশ।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৭৫৮ ঘণ্টা, জুন ০৭, ২০১৮
এমআইএস/এসএইচ

গ্রেফতার ‘জামায়াত-ছাত্রশিবিরের’ ২১০ জন কারাগারে
কালুরঘাট সেতু থেকে নদীতে ঝাঁপ 
ব্যাংকিং সেবার আওতায় চসিকের ৯০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
‘আমরা কাউকে হত্যা করতে চাই না’
তিস্তায় পানি বৃদ্ধিতে আতঙ্কিত মানুষ