Alexa

আনন্দ-বেদনায় সূর্যসেন হলে শেষ ইফতার

সাজ্জাদুল কবির, ইউনিভার্সিটি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাবির হলে শিক্ষার্থীদের ইফতার/ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার দা সূর্যসেন হলের আবাসিক ছাত্র খাইরুল ইসলাম। সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে পড়াশুনা শেষ করে সম্প্রতি পুলিশে যোগ দিয়েছেন। দেখতে দেখতে কখন যে শিক্ষা ও কর্ম জীবনের মোহনায় এসে উপনীত হয়েছেন তা বুঝতেই পারেননি। বারবার মনে পড়ে যাচ্ছে প্রথম বর্ষে হলে ওঠা এবং বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা-গল্পে ভরে থাকা হাসি-আনন্দের মুহূর্তগুলো। মনে পড়ে যায় বিশেষ দিন ও ক্ষণের কথা, যেগুলো ছিলো বন্ধু-বান্ধবের উপস্থিতিতে মুখরিত এবং ভালোবাসায় পূর্ণ।

প্রথমে হলে এসে পরিবারের সদস্যদের ছাড়াই একটা ভিন্ন পরিবেশে বন্ধুদের সঙ্গে মিলেমিশে ইফতার করেছেন। পরিবার ছেড়ে আসার বেদনায় তখন মনে মধ্যে একরকম খারাপ লাগা কাজ করলেও পরবর্তীতে বন্ধুরাই হয়ে ওঠেন ক্যাম্পাস জীবনের আনন্দ-বেদনার সার্বক্ষণিক অংশীদার। সে থেকেই পরের বছরগুলোতে বন্ধুদের ছাড়া ইফতারের আনন্দ যেন অনেকটাই অপূর্ণ থেকে যায়। তাই রমজান মাস এলেই মহা ধুমধামে বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে ইফতারের আয়োজন ছিলো তার ক্যাম্পাস জীবনের সবচেয়ে স্মরণীর এবং মধুর স্মৃতির অন্যতম।

নিজের এমন অনুভূতি ব্যক্ত করে খাইরুল বাংলানিউজকে বলেন, প্রথম বর্ষে ক্যাম্পাসে এসে গণরুম থেকে শুরু করে ডাকসু, টিএসসি, উদ্যান, সিনেট ভবনসহ কোন জায়গা বাদ রাখিনি। একেকদিন একেক জায়গায় ইফতার করেছি। বন্ধুরা মিলে পুরান ঢাকা থেকে বৃষ্টির দিনে কষ্ট হলেও ইফতার এনেছি। এখন সব স্মৃতি। তবে এবারের ইফতারের আয়োজনটা একই সঙ্গে আনন্দ এবং বেদনার। হল ছেড়ে দেওয়ার এই সময়েও বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে ইফতার করতে পারছি এটা যেমন আনন্দের তেমনি আর কখনো এভাবে তাদের সঙ্গে বসা হবে না এভাবনাটি অত্যন্ত বেদনার।

প্রতি বছর যারা হল ছেড়ে চলে যান তাদের অনুভূতি খাইরুলের মতোই। রমজানের উৎসবমুখর ইফতার তারা মিস করেন। শেষ হয় আনন্দ-বেদনার স্মৃতিগুলো ভাগাভাগি করার ক্যাম্পাস (হল) জীবন।

এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ে রমজানের ছুটি শুরু হলেও পরীক্ষার জন্য অনেক শিক্ষার্থী বাসায় যেতে পরেননি। আর চাকরি প্রত্যাশীরাতো আছেনই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পোসে অবস্থানকারী শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন হল ক্যান্টিন, দোকানগুলো থেকে ইফতারি তৈরির বিভিন্ন আইটেম সংগ্রহ করে। বিকেল হতেই দোকানগুলো ভিড় লক্ষ্য করা যায়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, চার-পাঁচটি দোকান তাদের ইফতারির আইটেমগুলো সাজিয়ে রেখেছে। এর মধ্যে রয়েছে ছোলা, পেঁয়াজু, বেগুনি, চপ, জিলাপি। শসা, পেঁয়াজ, ধনিয়া পাতা, কাঁচা-মারিচ সব কেটে প্যাকেট করে রেখেছেন বিক্রেতারা। শিক্ষার্থীরা তাদের পছন্দমতো কিনছেন। পরেই সব উপাদান মিক্স করে হলের মাঠ, কক্ষ, মেস কক্ষে ইফতারিতে অংশ নেয়।

কথা হয় ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র শামীম রাজা মাহিনের সঙ্গে। বাংলানিউজকে তিনি বলেন, এবারই প্রথম ভিন্ন পরিবেশে ইফতার করছি। পরিবারের সদস্যদের মনে পড়লেও বন্ধুদের হৃদ্যতা সেটি অনেকটা কেটে গেছে। গতবারের মতো বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন প্রতিটি হলে একদিন ইফতার পরিবেশন করা হবে বলে বিভিন্ন হলের আবাসিক শিক্ষকরা জানিয়েছেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০২৬ ঘণ্টা, মে ১৯, ২০১৮
এসকেবি/এসএইচ

ক্রুসে রক্ষা জার্মানির
নেইমারের হলুদ কার্ড নিয়ে উদ্বিগ্ন ব্রাজিল
নারায়ণগঞ্জে ট্রেনের ইঞ্জিনে প্রাণ গেলো অজ্ঞাত ব্যক্তির
মার্কো রিউসের গোলে সমতায় জার্মানি
টিকে থাকার ম্যাচে প্রথমার্ধে পিছিয়ে জার্মানি