Alexa

মহাকাশ থেকে আসা হীরা

ফিচার ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: মহাকাশ থেকে একটি পাথরখণ্ড পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে এসে বিস্ফোরিত হয়েছিল ২০০৮ সালে। পাথরখণ্ডটির নমুনা সংগ্রহ করে এর ভেতর পাওয়া যায় হীরা! অত্যাশ্চর্য এ পাথরটি নিয়ে এতোদিন নানা গবেষণা চালিয়েছেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের গবেষকরা। এবার তারা জানাচ্ছেন পাথরখণ্ডটির উৎপত্তির ইতিহাস।

গবেষকরা বলছেন, হীরাযুক্ত পাথরখণ্ডটি ভিন্ন এক সৌরজগতের একটি গ্রহ থেকে এসেছে। কোটি কোটি বছর আগে গ্রহটি এক মহাজাগতিক সংঘর্ষে ধ্বংস হয়ে যায়। গ্রহটির আকৃতি ছিল মঙ্গলগ্রহ বা বুধগ্রহের সমান। 

সংঘর্ষের ফলে গ্রহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার পর পাথরখণ্ডটি কোটি কোটি বছর মহাশূন্যে ঘুরে বেড়িয়েছে। ২০০৮ সালে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের সংঘর্ষে পাথরটি বিস্ফোরিত হয় এবং ধ্বংসাবশেষ উত্তর সুদানের নুবিয়ান মরুভূমিতে এসে পড়ে। 

পাথরখণ্ডটির রয়ে যাওয়া অংশগুলোর উপাদান চিহ্নিত করতে তিনটি ভিন্ন ভিন্ন মাইক্রোস্কোপি পরীক্ষা করা হয়। গবেষকরা এরমধ্যে এমন কিছু উপাদান পেয়েছেন যা কেবল ২০ গিগাপ্যাসকেলের বেশি চাপের মধ্যে সৃষ্টি হওয়া সম্ভব। এ থেকে বোঝা যায় পাথরখণ্ডটি একসময় একটি বড় গ্রহের অংশ ছিল।

গবেষকরা জানান, ২০০৮ সালে হীরা যুক্ত যে পাথরখণ্ডটি উল্কায় পরিণত হয়ে পৃথিবীতে এসেছিল, মহাকাশ থেকে পৃথিবীতে আসা ১ শতাংশ উল্কা একই উপাদানে গঠিত। গবেষকরা মনে করছেন, এই উল্কাগুলো সব একই গ্রহ বা গ্রহাণুর হয়ে থাকতে পারে।

হীরাযুক্ত পাথখণ্ডটি নিয়ে গবেষণার ফলাফলটি প্রকাশিত হয় ‘জার্নাল ন্যাচার কম্যুনিকেশন্সে’।

বাংলাদেশ সময়: ০৬০৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৮, ২০১৮
এনএইচটি/এএ

গোপনীয়তা লঙ্ঘনের অভিযোগে গুগলের বিরুদ্ধে মামলা
ফেনীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের পরিবারকে অনুদান
২২-২৩ আগস্ট মার্কিন দূতাবাস বন্ধ থাকবে
চামড়া পাচার রোধে নওগাঁ সীমান্তে কঠোর বিজিবি-পুলিশ 
তিল ঠাঁই নেই বিমানবন্দর রেলস্টেশনে