Alexa

জমজমাট বরফ উৎসবে মাতোয়ারা হার্বিন

অফবিট ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চীনের শীতের শহর হার্বিন

চীনের শীতের শহর হার্বিন। প্রতি বছর সেখানে অনুষ্ঠিত হয় বরফ ও তুষার উৎসব। বরফের তৈরি বিভিন্ন ভাস্কর্য যেমন পশু-পাখি, কার্টুন চরিত্র ও ল্যান্ডমার্ক এতে স্থান পায়। মাসব্যাপী এ উৎসবের পর্দা ওঠে চলতি বছরের ২ জানুয়ারি।

তাপমাত্রা মাইনাস ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকা সত্ত্বেও মানুষজনের উৎসবমুখরতা চোখে পড়ার মতো!চীনের শীতের শহর হার্বিনগত বছরের উৎসবে ১৮ মিলিয়ন দর্শনার্থী এসেছিলেন। আর হার্বিন শহরের ট্যুরিজম ব্যুরোর আয় হয়েছিলো ৪ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার।

২০১৮ সালের হার্বিন বরফ ও তুষার উৎসবের জন্যে বরফ ভাস্কর্য শিল্পী হ্যান জেনকুন ঐতিহাসিক সিল্ক রোড কেন্দ্র করে তার ডিজাইন প্রস্তুত করেছিলেন।চীনের শীতের শহর হার্বিনএপিকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে হ্যান বলেন, প্রাচীনকালে সিল্ক রোডের সাহায্যেই বিভিন্ন মূল্যবান চিত্রকর্ম উট ও ঘোড়ার পিঠে চড়ে পাশ্চাত্যে পাঠানো হতো।চীনের শীতের শহর হার্বিনমস্কোর রেড স্কয়ার এবং ব্যাংককের গৌতম বুদ্ধের বরফ মূর্তি পৃথিবীর অন্যতম চমকপ্রদ বরফ উৎসবের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু।
চীনের শীতের শহর হার্বিনহার্বিন বরফ-তুষার ওয়ার্ল্ডের একটি পার্কে ২ হাজারটিরও অধিক বরফের ভাস্কর্য রয়েছে, যেগুলো ১ লাখ ৮০ হাজার কিউবিক মিটার বরফ দিয়ে তৈরি। সংহুয়া নদী থেকে এক হাজার জনের বেশি কর্মী বরফ সংগ্রহ করেন। সন্ধ্যার সময় রঙিন বাতি দিয়ে ভাস্কর্যগুলো সাজানো হয়।চীনের শীতের শহর হার্বিনভাস্কর্য প্রতিযোগিতার পাশাপাশি উৎসবে আরো রয়েছে সাঁতার প্রতিযোগিতা। বরফে হকি খেলা ও বাইক চালানোর মতো উত্তেজনাপূর্ণ খেলা। দর্শনার্থীরা খুব আগ্রহ সহকারে পুরো উৎসব ঘুরে ফিরে দেখেন ও আনন্দ করেন।চীনের শীতের শহর হার্বিনভাস্কর্যগুলো বিশেষভাবে সন্ধ্যায় খুব অপূর্ব লাগে, রঙিন বাতি জ্বলে এবং সেগুলোর রং ক্ষণে ক্ষণে বদলায়। শীতকালীন জাদুর শহরে পরিণত হয় পুরো এলাকা।চীনের শীতের শহর হার্বিনওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড প্রজেক্ট ও হার্বিন বরফ উৎসবে প্রদর্শন করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৪২৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০১৮
বিএটি/এএ

রেলওয়ে পুলিশের সঙ্গে টিকিট পরিদর্শকের হাতাহাতি!
জঙ্গি মামলার দুই তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব
বিজয়নগরে ১৩৭ কেজি গাঁজাসহ আটক ১
পুলিশ পাহারায় চলবে শাটল ট্রেন
ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটিতে ‘ব্র্যান্ড এইড’