Alexa

‘বিশ্বকাপ আইছে বইলা…’

সৈয়দ হসিবুন নবী, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মোহাম্মদ যোবায়ের হোসেন। ছবি: বাংলানিউজ

সাভার (ঢাকা): মোহাম্মদ যোবায়ের হোসেন। গ্রামের বাড়ি ফরিদপুর জেলায়।গত চার বছর ধরে পতাকা বিক্রি করেই চলছেন তিনি। আর এ দিয়েই চলে তাদের সংসার। 

আশুলিয়ার চান্দুরা এলাকাতে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন। যোবায়ের একা নন। তারা ৩০ জনের একটি দল একসাথে থেকে পতাকা বিক্রি করেন।

যোবায়ের বলেন, সারাবছর নানা কিছুর হকারি করলেও বিশ্বকাপ খেলা আইছে বইলা এখন পতাকা বেচি। 

বছরের অন্য সময় বাংলাদেশের পতাকা বিক্রি করলেও এখন চলছে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, জার্মানি, ফ্রান্সসহ বিভিন্ন দেশের পতাকা বিক্রির তোড়জোড়। তাই বলে বাংলাদেশের পতাকা বিক্রি কিন্তু থেমে নেই।

তিনি নিজে আর্জেন্টিনার একজন পাঁড় সমর্থক বলে জানাতে ভুললেন না এই পতাকাবিক্রেতা। আনহেল ডি মারিয়া, লিওনেল মেসিদের খেলা দেখে নিজের মধ্যে দারুণ এ আনন্দ বোধ করেন তিনি।কারণ তারা মাঠে নামলে অন্য দলের খেলোয়াড়েরা আতংকিত হয়ে পড়ে—এমনটাই ধারণা তার।

বেশিরভাগ লোকই নিজেদের পছন্দের দেশের পতাকার পাশাপাশি কিনছেন নিজ দেশের পতাকা।কারণ সবার আগে নিজের দেশ।উপরে বাংলাদেশের পতাকা লাগিয়ে নিচে পছন্দের দলের পতাকা লাগানো হয়।

বাংলানিউজকে যোবায়ের আরো জানান, প্রতিদিন প্রায় ২৫ থেকে ৩০টি পতাকা বিক্রি হয়। তবে বিশ্বকাপ খেলা যতো ঘনিয়ে আসছে ভিন দেশের পতাকা বিক্রির হারও ততো বাড়ছে।

সারাদিন সাভার-আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকার রাস্তাঘাট, অলিগলি এবং বিভিন্ন বিপণীবিতানির সামনেই বেচাবিক্রিটা বেশি হয়ে থাকে।
সর্বনিম্ন ১০ টাকা থেকে শুরু করে ২৫০ টাকা পর্যন্ত দামের পতাকা পাওয়া যায় তার কাছে। চাহিদা অনুসারে বিভিন্ন দামের ও মানের পতাকা সরবরাহ করে থাকেন।মাঝেমধ্যে আবার পতাকার অর্ডারও নিয়ে থাকেন।

উল্লেখ্য, আগামী ১৪ জুন রাশিয়ার মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে পর্দা উঠবে ফুটবল নামের বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ক্রীড়ার মহারণ। আর ১৫ জুলাই একই ভেন্যুতে ফাইনালের মাধ্যমে পরবর্তী চার বছরের বিশ্বসেরা দেশের হাতে উঠবে বহুল কাঙ্ক্ষিত ট্রফি।

বাংলাদেশ সময়: ২০৩২ ঘণ্টা, মে ১৭, ২০১৮
জেএম

দুই প্রজাতির মিষ্টি বাঙ্গি উদ্ভাবনে অভাবনীয় সাফল্য
দু’দেশের ঐতিহাসিক বন্ধন-মৈত্রীর প্রতীক ‘বাংলাদেশ ভবন’
মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার সিন্ডিকেট মুক্ত করার দাবি
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে শিক্ষার্থীদের সতর্ক করলো ইউজিসি
কিমের সঙ্গে ১২ জুনের বৈঠক নিয়ে ট্রাম্পের সংশয়