Alexa

৭ কোটি আমে ফ্রুট ব্যাগিং, রফতানিতে কুয়াশা

বাংলানিউজ টিম | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

আমচাষি ইসমাঈল খান শামীম/ছবি: বাদল ও আরিফ জাহান

রাজশাহী চেম্বার ভবন থেকে: এ বছর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় সাত কোটি আমে ফ্রুটব্যাগিং করলেও ইউরোপ-আমেরিকায় রফতানির সুযোগ হবে কিনা তা নিয়ে চাষি কুয়াশায় রয়েছেন বলে জানিয়েছেন আমচাষি ও ব্যবসায়ী ইসমাঈল খান শামীম।

শনিবার (২ জুন) সকালে ‘আমের দেশে নতুন বেশে’ শীর্ষক আলোচনায় বক্তব্যে একথা জানান তিনি।

ইসমাইল খান শামীম বলেন, আমার বাগানের আম প্রথম ইউরোপের পাঠানো হয়েছিল। চাঁপাইয়ের আম দিয়ে আমরা বায়ারদের আনতে পেরেছি। অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। আমাদের মতো যারা তরুণ চাষি আছে, তারা যেন নিরাপদে আম রপ্তানি করতে পারি।

‘খুব কষ্ট লাগে চাঁপাই বলতে আম বোঝায়। সবচেয়ে বেশি আম উৎপাদন হয়। জরিপ চালিয়ে দেখেছি তিন হাজার কোটি টাকার আম দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যায়। এটাকে আমরা আম শিল্প বলবো। এ এলাকার ৯৫ শতাংশ মানুষ জড়িত। ২০১৬ সালে ১১০ টন রপ্তানি হয়েছিল। আমরা যে আম দেবো তা শতভাগ সেফ। এ ভাবনা থেকে আমরা ৪৩ জন মিলে ৫শ টন আম ফ্রুট ব্যাগিং করলাম। সেবার প্রায় ৩০ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে।’

আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত রয়েছেন রাজশাহীর জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের। সভাপতিত্ব করছেন নিউজটোয়েন্টিফোর ও রেডিও ক্যাপিটালের সিইও এবং বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম।

এছাড়া উপস্থিত রয়েছেন বাংলানিউজের কনসালট্যান্ট এডিটর জুয়েল মাজহার, চট্টগ্রাম ব্যুরো এডিটর তপন চক্রবর্তী, রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুব্রত পাল, আম চাষি ও ব্যবসায়ী ইসমাঈল খান শামীম, আম চাষি ও ব্যবসায়ী খন্দকার মনিরুজ্জামান মিনার, রাজশাহী অ্যাগ্রো ফুড প্রডিউসার সোসাইটির আহ্বায়ক মো. আনোয়ারুল হক, আম গবেষক ও লেখক মো. মাহাবুব সিদ্দিকী, আম চাষি ও ব্যবসায়ী (বাঘা) মো. জিল্লুর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ আম গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শরফ উদ্দিন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা।

বাংলাদেশ সময়: ১২২৯ ঘণ্টা, জুন ০২, ২০১৮
এসসিডি/এমবিএইচ/ইইউডি/এসএম/এমআই/ জেডএস/এএ/এসএইচ
-

ট্রেনের গার্ডকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগে কুলি সর্দার আটক 
বিশ্বকাপ ঘিরে সরগরম রুশ ডেটিং অ্যাপস
মেসির জন্মদিনে ভালোবাসার যে বার্তা দিলেনে রোকুজ্জো
চকরিয়ায় পুকুরে ডুবে যুবকের মৃত্যু
খানসামায় মোটরসাইকেল থেকে পড়ে নারী নিহত